ডি মারিয়ার বাংলায় আসার গুঞ্জন, সফর বিতর্কিত হবে না তো?

আর্জেন্টিনার কোপা আমেরিকা ও বিশ্বকাপ জয়ে অন্যতম ভূমিকা আছে ডি মারিয়ার। দুটি আসরের ফাইনালেই গোল করেছিলেন তিনি। বিশেষ করে বড় মঞ্চে গোল করাকে অভ্যাসে পরিণত করা ডি মারিয়াকে অনেকে ভালোবেসে ডাকেন ফাইনালম্যান বলে। স্প্যানিশ ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদে রোনালদোর সতীর্থ ছিলে তিনি। খেলেছেন মেসির সঙ্গে। আবার হয়েছিলেন নেইমারের সতীর্থও। সময়ের অন্যতম সেরা তারকাদের সঙ্গে খেলেও ঠিকই নিজের দিকে আলো টেনে নিতে পেরেছেন ডি মারিয়া।

কোপা আমেরিকা কিংবা বিশ্বকাপ, আর্জেন্টিনার প্রয়োজন হলেই উড়ে আসেন ডি মারিয়া। করে বসেন গোল। প্রতিপক্ষের হৃদয় ভাঙেন, ভক্তদের উল্লাসে মাতান। বিশ্বকাপজয়ী আর্জেন্টিনা দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। পুরো কাতার বিশ্বকাপে নজর কেড়েছেন এই ফুটবলার। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে হয়তো চলতি বছরের মাঝামাঝি বাংলাদেশে দেখা যেতে পারে তাকে। কলকাতা হয়ে বাংলাদেশে আসবেন  মারিয়া। যদিও দিনক্ষণ চূড়ান্ত করেননি এই তারকা ফুটবলার। ধারণা করা হচ্ছে বছরের মাঝামাঝি যে কোনো সময় কলকাতায় পা রাখতে পারেন তিনি।

লিকলিকে গড়নের এই তারকা যে কারও কাছেই আরাধ্য। বাংলাদেশের মানুষ তাকে আগে থেকেই ভালোবাসতো। বিশ্বকাপের পর যা আরও বেড়ে যায়। সবাই চায় ডি মারিয়া অন্তত সময় নিয়ে বাংলাদেশ আসুক। ফুটবল খেলুক, একাডেমি পরিদর্শন করুক, ভক্তদের সময় দিক। তার সফর যেন বিতর্কিত না হয়।

এক ভক্ত বলেন, এর আগে এমি আর রোনিকে আনা হয়েছে। তাতে ভক্তদের কোনো লাভ হয়নি। এমিকে তো জাতীয় দলের ফুটবলাররাই দেখতে পারেননি। তাই, ডি মারিয়ার ব্যাপারে যেন এসব কিছু না হয়৷ হলে সেটি দুঃখজনক। এভাবে ব্যবসায়িক উদ্দেশে আনার চেয়ে না আনাই ভালো। ভক্তদের সঙ্গে অন্যায় করা হয়। ভক্তদের সান্নিধ্যে আসলে ডি মারিয়া বুঝতে পারবে, আমরা তাকে কতটা ভালোবাসি।

গত বছর অবসরের ঘোষণা দেওয়া ডি মারিয়াও ভক্তদের ভালোবাসেন। তাদের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি সবচেয়ে বেশি পেয়েছি ভক্তদের ভালোবাসা। তারা সবসময় আমাদের পাশে থেকেছেন। তাদের ছাড়া আমরা এতদূর আসতে পারতাম না, এতে কোনো সন্দেহ নেই। ক্যারিয়ারের মিষ্টি সময়গুলো নিয়ে আমি গর্বিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here