সিরিজ জয়ের আশায় বুধবার লড়াইয়ে নামছে বাংলাদেশ

বাংলাদেশের সামনে সুযোগ সিরিজ নিজেদের করে নেওয়ার। জিতলে তো কথাই নেই, ড্র করলেও সিরিজ স্বাগতিকদের। অন্যদিকে, সিরিজ বাঁচাতে হলে নিউজিল্যান্ডকে জিততেই হবে। এমন সমীকরণ নিয়ে সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে আগামীকাল বুধবার (৬ নভেম্বর) নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে দুদল। ম্যাচটি শুরু হবে সকাল সাড়ে ৯টায়। সিরিজের প্রথম ম্যাচে কিউইদের বিপক্ষে দাপুটে জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। প্রথম ম্যাচ জয়ের সুখস্মৃতি নিয়ে দ্বিতীয় ম্যাচেও জয়ের আশা নিয়ে মাঠে নামবেন শান্ত-মমিনুলরা।

সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামের উইকেট নিয়ে অভিযোগ নেই কোনো দলেরই। তবে, কাল মিরপুরের পিচ কেমন হবে তা নিয়ে নিউজিল্যান্ড যেমন চিন্তিত, তেমনই চিন্তিত বাংলাদেশ দল৷ ‘হোম অব ক্রিকেট’- এর রহস্যজনক উইকেটে অতীতে অনেকবারই বেকায়দায় পড়েছিল টাইগাররা। ম্যাচ মাঠে না গড়ানো পর্যন্ত মিরপুরের উইকেট সম্পর্কে ধারণা রাখা মুশকিল।

মিরপুরের উইকেট নিয়ে টাইগার কোচ হাথুরুসিংহে বলেন, ‘ মিরপুরে আসলে কয়েক সেশন খেলার আগে পিচ সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায় না। এখানে অনেক বেশি খেলা হয়। আমার মনে হয় না মিরপুরের মতো বিশ্বের আর কোনও মাঠে এত পরিমাণ খেলা হয়। আমরা অনুমান করতে পারছি না কী হতে যাচ্ছে। তবে, আমরা চেষ্টা করবো খুব বেশি পরিবর্তন না নিয়েই মাঠে নামতে। ‘

এশিয়ার মাঠ গুলো বরাবরই স্পিন সহায়ক। বাংলাদেশ সফরে তাই একঝাক স্পিনার নিয়ে এসেছে নিউজিল্যান্ড দল। সিলেটের মাঠে কিউই স্পিনাররা তাদের সেরাটা দিতে পারেননি। বরং, বাংলাদেশের তাইজুল ইসলামের ঘূর্ণিতে নাকানিচুবানি খেতে হয়েছে টম লাথাম- কেন উইলিয়ামসনদের। দ্বিতীয় ম্যাচেও যে স্পিনাররা বড় ভূমিকা রাখবেন সেটা বুঝতে ভুল করেননি কিউই অধিনায়ক টিম সাউদি।

সাউদি বলেন, ‘আপনি বিশ্বের এই জায়গায় খেলতে আসলে স্পিনাররা বড় ভূমিকা পালন করবে সেটি মাথায় রাখতে হবে। প্রথম ম্যাচেই আমরা তা দেখেছি। দ্বিতীয় ম্যাচেও সেটা দেখব বলেই মনে হচ্ছে। যদিও, আমরা দেখেছি সিলেটে কাইল জেমিনসন বেশ কয়েকটা সুযোগ তৈরি করেছিল। এই ম্যাচেও সে এটি পারবে সেই আশা রাখছি। বলতে দ্বিধা নেই লড়াইটা স্পিনারদের মধ্যেই হবে৷’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here