বিশ্বকাপ নিয়ে আপাতত ভাবছেন না চট্রগ্রামের ‘ট্রাম্পকার্ড’

ছবিঃ সংগৃহীত

পূর্বের দুই আসরে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও সিলেট সিক্সার্সের হয়ে খেললেও বিপিএলের বিশেষ আসরের প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে তাকে দলে নেয় নি কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি। এরপর রংপুর রেঞ্জার্সের সাথে নেট বোলার হিসেবেও কাজ শুরু করেছিলেন তিনি। সেখান থেকে ইমরুল কায়েস এবং মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের সুপারিশে জায়গা হয় চট্রগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স শিবিরে।

জ্বি পাঠক বলছি, বিশেষ আসর বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগের চমক জাগানো বাঁহাতি পেসার মেহেদী হাসান রানার কথা। রিয়াদ, কায়েস ঝুঁকি নিয়ে তাকে দলে নিলেও তাদের হতাশ করেন নি চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা মঞ্জুরুল হকের নয়নমনি মেহেদী। চার ম্যাচ খেলেই হয়েছেন বিপিএলের এবারের আসরের সর্ব্বোচ্চ উইকেট শিকারী। ৬.৬৮ ইকোনমি রেটে চার ম্যাচ খেলে উইকেট শিকার করেছেন ১২টি।

২০১৬ সালের অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ খেলে আলোতে এলেও হার্নিয়ার অপারেশনের কারণে ১৮ মাস খেলার বাইরে ছিলেন। এরপর খেলায় ফিরলেও বলার মতো তেমন কোন পারফর্ম্যান্স করে দেখাতে না পারায় এবারের আসরের শুরুতে তাকে দলে নিতে আগ্রহ দেখায় নি কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি। এবার হয়তো আক্ষেপে কপাল চাপড়াচ্ছেন তারাই।

চট্রগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের ট্রাম্পকার্ড মেহেদী হাসান রানার সাথে কথা বলেছিল টাইগার্স কেইভ বিডি। ইঞ্জুরির কারণে দীর্ঘদিন খেলার বাইরে ছিলেন। সেখান থেকে নিজের চেনা ফর্মে ফেরার পিছনে কোন জিনিসটি সবথেকে বেশি অনুপ্রাণিত করেছে জানতে চাইলে জবাবে রানা জানান,

‘অনুপ্রেরণা বলতে গেলে এইবছর যে এইচপি ক্যাম্প হয়েছিল সেটি আমাকে অনেক সাহায্য করেছে আমার পূর্বের ফর্মে ফিরে যেতে। এখানে আমি আমার দুর্বল দিকগুলো নিয়ে কাজ করেছি। আলহামদুলিল্লাহ, সেখান থেকে আমার অনেক উন্নতি হয়েছে।’

নিজের বোলিং নৈপুণ্যে মাত্র চার ম্যাচ খেলেই সেরা উইকেট শিকারীর তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছেন রানা। কেমন অনুভূতি কাজ করছে এবং পরবর্তী পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে রানা জানান, পারফর্ম্যান্সের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে পারাই তার মূল পরিকল্পনা। তার ভাষ্যে,

‘প্রথমে অনুভূতি বলতে আলহামদুলিল্লাহ অনেক ভালো লাগছে। মোটকথা, ভালো পারফর্ম্যান্স করলে ভালো অনুভূতি হওয়াটাই স্বাভাবিক। আর পরিকল্পনা বলতে বিগত ম্যাচগুলা যেভাবে খেলেছি ওইভাবে খেলার চেষ্টা করবো। ধারাবাহিকভাবে পারফর্ম করতে পারাটাই আমার মূল লক্ষ্য।’

সামনের বছরেই অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে বসবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। সেই লক্ষ্যে বিপিএলেই নজর আছে নির্বাচকদের। টুর্ণামেন্টে যারা চোখ ধাঁধানো পারফর্ম্যান্স কেঁড়ে নির্বাচকদের নজর কাড়তে পারবেন তাদেরই জায়গা হতে পারে বিশ্বকাপের স্কোয়াডে। চলমান বিপিএলে বেশ নজর কেড়েছেন রানা তাই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে ভাবছেন কি জানতে চাইলে তিনি বলেন,

‘আসলে আমি এখন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়ে মোটেও ভাবছি না বা ভাবতে চাচ্ছি না। আমার এখন মূল চিন্তাধারা বিপিএলকে ঘিরেই। আমি এখন পুরো মনোযোগ সহকারে বিপিএলের বাকি ম্যাচগুলো খেলতে চাই।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here